খাবার চাওয়ায় শাশুড়িকে মেরে গাছে লাশ ঝুলিয়ে রাখল পুত্রবধূ

রংপুর মহানগরীর দক্ষিণ গনেশপুর এলাকায় শনিবার সকালে আম গাছে ঝোলানো অবস্থায় মালেকা বেগম (৪৭) নামের এক বৃদ্ধার লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। খাবার চাওয়ায় পুত্রবধূ আখি বেগম ঝগড়াঝাটির একপর্যায়ে শাশুড়ি মালেকা বেগমকে নির্যাতন করে মেরে ফেলে লাশ ঝুলিয়ে রাখে বলে স্থানীয় সূত্র ও পুলিশের প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে।

নিহতের স্বামী রেজাউল হক জানান, শুক্রবার আমার স্ত্রী মলেকা বেগম পুত্র মাসুম মিয়ার বউ আখি বেগমের কাছে খাবার চায়। এনিয়ে তাদের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। এরই জের ধরে মধ্যরাতে আবারও ঝগড়াঝাটি শুরু হয়। এক পর্যায়ে আমার স্ত্রী মলেকা বেগমকে ব্যাপক মারধোর করে পুত্রবধু আখি বেগম।

নির্যাতনের মুখে আমার স্ত্রী মারা গেলে তাকে আখি বেগম রশি দিয়ে আমগাছে ঝুলিয়ে রাখা হয়। বিষয়টি পুলিশকে জানাই। পুলিশ শনিবার সকালে এসে লাশ উদ্ধার করে।
নিহতের দেবর আনোয়ার হোসেন জানান, রাত ১টার দিকে ভাতিজা মাসুম মিয়া আমার বাড়িতে এসে বলে চাচা মা তো মারা গেছে। এসময় সে একটি লাঠি নিয়ে তার স্ত্রীকে মারার জন্য খুঁজতে থাকে। আমরা গিয়ে দেখি লাশ আমগাছে ঝোলানো।

নিহতের পুত্র মাসুম মিয়া জানান, আমি আমার মায়ের জন্য কোনো কিছু আনা হলে আমার স্ত্রী সেটা কোনোভাবেই সহ্য করত না। এ নিয়ে আমাদের মধ্যে খুব ঝগড়া হতো। আমি মাকে কিছু দিতে গেলেই সে গালিগালাজ করত, ঝগড়া করত।

লাশ উদ্ধারকারী কোতয়ালী থানার এসআই মনোয়ার হোসেন জানান, ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহদের স্বামীর কথা একটি ইউডি মামলার সূত্র ধরে তদন্ত কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। ঘটনাটি আত্মহত্যা না হত্যা তা তদন্তের স্বার্থে বলা যাচ্ছে না।

তবে লাশের সূরুতহাল রিপোর্টকারী পুলিশের একটি সূত্র জানায়, লাশের শরীরের বিভিন্নস্থানে ৬টি মারাত্মক জখমের চিহ্ন রয়েছে। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের ধারনা নির্যাতন করে মেরে ফেলার পর লাশ ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে।