ওসামা বিন লাদেনের ভাতিজি আমেরিকার জনপ্রিয় মডেল!

ওসামা বিন লাদেন। নামটা শুনলেই আজও যেন কেঁপে ওঠে বহু মানুষের মন। ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনার জন্য তিনি বহুলভাবে পরিচিত। ওসামা বিন লাদেনের মতোই বহু মানুষ চেনে তাঁর ভাতিজি ওয়াফা দুফোরকেও।

বর্তমানে মার্কিন মুলুকের এক নম্বর মডেল লাদেনের ভাতিজি ওয়াফা দুফোর। পাশাপাশি তিনি গায়িকাও। একের পর এক মার্কিন গ্ল্যামার হান্ট কাঁপিয়ে বেড়াচ্ছেন তিনি। এক মার্কিন পত্রিকায় প্রকাশ করা হয় ওয়াফা দুফোরের আসল পরিচয়। একই সঙ্গে ওয়াফা জানিয়েছেন তাঁর এই পরিচয়ে তিনি একদমই বিরক্ত নন।

২০১১ সালে পাকিস্তানের অজ্ঞাতবাস থেকে মার্কিন সেনার হাতে খতম হওয়ার পর লাদেনের সম্পর্কে জানা গেছে অনেক তথ্য। জানা যায়, একাধিক স্ত্রী ছিল লাদেনের। বিশ্ব জুড়ে ছড়িয়ে রয়েছে লাদেনের প্রায় ৪০০ ভাতিজা-ভাতিজি। তার মধ্যেই একজন ওয়াফা দুফোর।

২০১১ সালের ২ মে তারিখে দিবাগত রাতে পাকিস্তানের আ্যবোটাবাদ শহরে মার্কিন কমান্ডোদের হামলায় (অপারেশন জেরোনিমো) ওসামা বিন লাদেন নিহত হন। গোপনসূত্রে খবর পেয়ে মার্কিন কমান্ডোরা ২টি হেলিকপ্টারযোগে লাদেনের বাসভবনে হামলা চালায়। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পাকিস্তান মিলিটারি একাডেমির মাত্র ১০০০ ফুট দূরে লাদেনের এই গোপন আস্তানাটি ২০০৫ সালে নির্মাণ করা হয়। এখানে লাদেন তাঁর কনিষ্ঠা স্ত্রী এবং পুত্র সহ বাস করতেন।

লাদেনের মরদেহ মার্কিন কমান্ডোরা হেলিকপ্টারযোগে প্রথমে আফগানিস্থানে এবং পরে মার্কিন রণতরীতে নিয়ে যায়। লাদেনের দেহ ডিএনএ প্রযুক্তির সাহায্যে শনাক্ত করা হয়। শনাক্তকরণের শেষে ইসলামী প্রথানুসারে মরদেহ আরব সাগরে দাফন করা হয়।