শরীরে যে লক্ষণগুলো হলে ডাক্তার দেখানো জরুরি

সুন্দরভাবে বেঁচে থাকার জন্য সবার আগে প্রয়োজন শারীরিক ও মানসিক সুস্থতা। কিন্তু বিভিন্ন কারণে অসুখ হতেই পারে। হতে পারে তা শরীরের, কখনো বা মনের। অনেক সময় আমরা বুঝতে পারি না কোন অসুখে ডাক্তারের কাছে যাওয়া প্রয়োজন। অনেক অসুখকে তখন পাত্তা দিতে চাই না বা সচেতন হই না। কিন্তু এমনকিছু অসুখ রয়েছে যা আপাতদৃষ্টিতে স্বাভাবিক মনে হলেও তার আড়ালেই ঘাপটি মেরে থাকতে পারে ভয়ংকর কোনো অসুখ। তাই জেনে নিন, শারীরিক কোন কোন পরিবর্তন দেখলে ডাক্তারের কাছে যাবেন-

হঠাৎ করে ওজন কমে গেলে: যদি হঠাৎ করে আপনার ওজন কমতে শুরু করে তবে সাবধান হতে হবে। দ্রুত ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে রক্ত পরীক্ষা করাতে হবে। দেখতে হবে ডায়াবেটিস বা থাইরয়েডের সমস্যা হচ্ছে কি না।

চুল পড়া: রোজই সবার মাথা থেকে কয়েকটি চুল পড়ে যায়। এটি স্বাভাবিক। যদি খুব বেশি পরিমাণে চুল পড়তে শুরু করে বা পাতলা হয়ে যায়, তবে অবশ্যই সতর্ক হতে হবে। অনেক সময়ই শরীরে থাইরয়েডের জন্য চুল পড়ে যায়। অনেক সময় প্রেগন্যান্সি বা পোস্ট সার্জারির সময় এই সমস্যা দেখা দেয়।

দীর্ঘ সময় সর্দি-কাশি: অনেক সময়ই দীর্ঘদিন ধরে সর্দি-কাশি চলতে থাকে। আমরা অনেকেই ভাবি, ঠান্ডা লাগার কারণ। কিন্তু চিকিৎসকরা বলছেন, এটি অনেক সময়ই বদহজমের ইঙ্গিত দেয়। এমনকি বিভিন্ন ধরনের অ্যালার্জি, রক্তচাপের ওঠা-নামার মতো রোগেরও ইঙ্গিত এই সর্দি-কাশি।

চামড়ায় প্রভাব: রুক্ষ চামড়ার কারণ, আপনার শরীর সঠিক পরিমাণে হাইড্রেট হয় না। অনেক সময় থাইরয়েডের কারণেও চামড়া শুষ্ক হয়ে পড়ে। এছাড়া পায়ে গোলাপি দাগ, বিশেষ করে গোড়ালির কাছে দেখলে এড়িয়ে যাবেন না। রক্তচলাচল ঠিক না হলে এমন দাগ হতে পারে।

মলত্যাগের অভ্যাস পরিবর্তন: প্রায়ই পেটে ব্যথা হলে বা প্রতিদিন যে সময়ে মলত্যাগ করেন, সেটা আচমকা পরিবর্তন হলে সতর্ক হন। খেয়াল করুন, নির্দিষ্ট কোনো খাবারে আপনার অস্বস্তি হচ্ছে কি না। অনেক সময় কোনো ওষুধের কারণেও এই পরিবর্তন হয়। এমনকিছু লক্ষ করলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।