স্মার্টফোনে পর্ন দেখেন? এখনই এই পাঁচটি বিপদ হইতে সাবধান

আপনার হাতের নাগালে ল্যাপটপ বা কম্পিউটার থাকলেও অনেক সময় অলসতাবসত স্মার্টফোনই এখন মানুষের প্রিয় বন্ধু। এমনকি মানুষ পর্ন ভিডিও দেখতেও সমার্টফোনেই ব্যবহার করেন। কৌতূহল যখন কোনো বাধা মানতে চায়না, তখন সেই কৌতূহল মেটাতে অর্থাৎ মনের চাহিদা মেটাতে স্মার্টফোনেই ঝুঁকে পরি আমরা। কিন্তু এর থেকে যে কত বড় বিপদ হতে পারে সেকথা কেউ চিন্তা করেন না। গুগলে গিয়ে পর্ন সিনেমা দেখা যে কতটা ভয়ংকর হতে পারে তা নিচে দেয়া হলো:

১. অনেক সময় দেখা যায় যে কয়েকটি পর্ন ভিডিও দেখতে গেলে অর্থের বিনিময়ে দেখতে হয়। কিন্তু কিছু ম্যালিসিয়াস সফ্টওয়ার রয়েছে যেগুলি ফোন লক করে দেওয়ার ক্ষমতা রাখে। পর্ন সাইটে অনেক সময় কিছু পপ-আপ ভেসে ওঠে, যেগুলি ভুল করেও যদি হাতের ছোঁয়া লাগে, সঙ্গে সঙ্গে আপনের ফোন হয়ে যাবে লক। অনলাইন এ অর্থ দিলে তবেই খুলবে লক। অনেক সময় ওঠো দিলেও লক খোলা যায় না।

২. চাইল্ড পর্ন দেখা আইনত অপৰাধ- একথা সকলের জানলেও অনেকসময় অনিচ্ছেকৃতভাবেও ঐসব সাইট খুলে যায়। হ্যাকের দের কাছে এই সমার্টফোনে চাইল্ড-পর্ন দেখার খবর পৌঁছলে সেই ব্যক্তিকে আইনি চক্করেও ফেলে দিতে পারে অথবা ব্ল্যাকমেল ও করতে পারে।

ছবি: সংগৃহীত
৩. পর্ন সাইট এর মাধ্যমে মানুষ জড়িয়ে পড়তে পারে নানা ধরণের পেইড সার্ভিসে। আপনের অজান্তেই এই ধরণের সর্ভিসগুলি আপনের ফোনে এক্টিভেট হয়ে যায়। তারপর ওই সার্ভিস গুলির জন্য কেটে নেয়া হয় অর্থ।

৪. মনে রেখে দেওয়া দরকের, যে এইসব পর্ন সাইটে হ্যাকাররা সবসময় যেন ওঁৎ পেতে বসে আছে. এইসকল সাইটে ফাঁদ পেতে বসে থেকেই অর্থ উপার্জন করে। যেসব ব্যক্তি নিয়মিত পর্ন দেখেন, সেইসকল ব্যক্তির কাছে নতুন ধরণের বিগ্গাপন প্রেরণ করে সেখানে ঢুকতে প্রলুব্ধ করে। একবার কেউ এইধরণের সাইটে ঢুকে পড়লে ব্যক্তির সমস্ত বগ্যক্তিগত তথ্য পেয়ে যায় ওই হ্যাকাররা।

৫. পর্নসেটে শুধুই যে বিগ্গাপন মানুষকে বোকা বানাবে, তা ভুল। সেখানে নানা ধরণের আপ ডাউনলোড করতে যে কোনো কিছু আপডেট করতেও বলা হয়। এই সব জিনিস এক্টিভেট করলেই আপনের সমস্ত তথ্য চলে আসবে হ্যাকারদের হাতে। সুতরং, গুগলে গিয়ে যখন তখন পর্ন সাইট দেখলেও একটু সাবধানতে অবলম্বন করুন।